তিলোত্তমা মেহেন্দিগঞ্জ_2

এখানে এমন অনেক দ্বীপ আছে যাকিনা জোয়ারের পানিতে হারিয়ে যায় ভাটিরটানে আবার জেগেওঠে। কোন কোন দ্বীপ আবার প্রকৃতিরদানে বিনা পরিচর্যার উদ্ভিদ নিয়ে দৃষ্টিনন্দন ভাবে সেজে থাকে। তাদের এমন সব বাহারী শোভা অলংকরনের উপাদান সমুহ উদ্ভিদ গুল হইল। হোগলা পাতা, কাইচা, ক্ষেরী সহ আরো নানাবিধ বনজ ফলজ গাছ গাছালী।

২) মনোরম পরিবেশের সবুজে পরিপাটি মেহেন্দিগঞ্জের থানা ঘঠিত মুল দ্বীপটি দৈর্ঘ প্রস্থ্যে ১০*৬=৬০ বর্গ কিলোমিটার।
আশ্চার্য্য হইলেও সত্যি যে এত ছোট্ট একটি দ্বীপে তিন (৩০০,০০০) লক্ষ্যাদিক লোকের বসবাস। আয়তনের হিসাবে প্রতি বর্গ কিলোমিটারে প্রায় পাঁচ (৫,০০০) হাজার লোক বসবাস করেন। যা পৃথিবীতো দূরের কথা অতি বসতির বাংলাদেশের গড় হিসাব থেক চার গুনেরও বেশী। যা স্বাভাবিক ভাবেই আধুনিক যুগেও অত্যাধুনিক ঘটনা।

৩) দ্বীপটির বিশাল এই জনগোষ্ঠির দৈনন্দিন জীবন যাপনের জন্য একটু একটু করে গড়ে উঠেছে ২টি বন্দর বাজার। সেই সাথে আরো ৮/১০টি হাট তারপরেও অধিক জনবসতির প্রয়োজনিয়তায় এসব হাটের ব্যবধানে স্থানভেধে গড়ে উঠেছে ছোট ছোট আরো বেশ কিছু বাজার।
এরসাথে আছে ব্যাংক বীমা সহ আরে নানাবিধ এনজিও সংস্থা। এমন সব বিশাল বিশাল নদীর বেষ্টনীতে থেকেও অগ্নি নির্বাপনের জন্য বহুবিধ নিরাপত্তায় আছে ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্স কার্যালয়ের বহুতল ভবন।

TO BE CONTINUE....


Thank for reading this post. Do not forget to like, share and comment. Your comment can be so helpful for me.
Thanks for supporting me in my work.
:)

Comments